Emdadul Mia

Emdadul Mia

An insatiable writer and blogger about militancy, religious superstitions, and societal depravity. His writing’s primary message is to reveal the religious traders’s masks and shield readers from actions that degrade society and public life by giving in to intolerance. His book, published in 2022, “Dharmiya Goramir Ekal Sekal” (The Past and the Present of Religious Orthodoxy), gained huge popularity. Md. Imdadul Mia, a writer and blogger, is the third child of Md. Chayed Mia and Mrs. Zubeda Khatun. He was born on May 8, 2000, in the largest village in Asia, Baniachong, in the Habiganj district, to an aristocratic Muslim family. In the community, his father, Md. Chayed Mia, is a prominent businessman, and his mother, Mrs. Zubeda Khatun, is a homemaker. He completed his Bachelor of Science (Honours) in Physics at Vrindavan Government College in 2021. His time at college gave rise to his non-communal character. In addition to working for his father’s company, he began blogging on social media in 2022 to criticise religious fanaticism and militancy. He also produced several ferocious protest essays during that period. Additionally, he supports several social development initiatives. In 2021, he founded a kindergarten called “Education for the Disabled”, where children with disabilities could get free education. Further, he is connected to “Bhatrapara Jubo Sangho”, an organisation that performs numerous cooperative tasks for society’s impoverished people.

Blog

এখনই সময় ধর্মীয় উগ্রবাদকে রুখে দেওয়ার।আমরা সহিংস উগ্রবাদমুক্ত শান্তিময় একটি আদর্শ সমাজ উপহার দিতে চাই।

সহিংস উগ্রবাদ বর্তমানে বিশ্বব্যাপী এক ভয়াবহ সামাজিক সমস্যার নাম। সারা বিশ্বের মানুষ আজ এটি নিয়ে উৎকণ্ঠিত এবং উদ্বিগ্ন। এর ভয়ংকর ছোবলে বিশ্ব আজ ক্ষতবিক্ষত। জাতি, ধর্ম, বর্ণ, গোত্র নির্বিশেষে আমাদের

আমাদের দেশে এই আতঙ্কজনক পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে জেএমবি, হরকাতুল জিহাদ, হিজবুল্লাহ, আনসারুল্লাহ বাংলা টিম, আল্লাহর দল, লস্করে তৈয়বা, তালেবান নামের বিভিন্ন জঙ্গিগোষ্ঠী

সারা বিশে^ই আজ ধর্মীয় স্বাধীনতার আকাল চলছে। জঙ্গিবাদের উত্থান আতঙ্কজনক অবস্থায়। ধর্মের নামে তাদের তাÐব বিশ^কে অশান্ত করে রেখেছে। বিশে^ বর্তমানে ৭০০ কোটি মানুষের বাস। এই ৭০০ কোটি মানুষের সিংহভাগই

বিশ্ব তথা সামাজিক শান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য ধর্মীয় সহনশীলতা জরুরি, উগ্রতা নয়।

যেকোনো উগ্রবাদ বিভাজন সৃষ্টি করে, কখনও একত্রিত করে না। এমন কোনো নজির নেই যেখানে ধর্মীয় উগ্রতা ও উগ্র জাতীয়তাবাদের কারণে দুটি সমাজ বা দেশ এক হয়েছে। সমাজের শান্তি ও সম্প্রীতি

সমাজের শান্তি ও সম্প্রীতি নির্ভর করে একটি অঞ্চলের মানুষের ইতিবাচক মানসিকতার উপর; ধর্ম বা জাতীয়তার উপর নয়।

যেকোনো উগ্রবাদ বিভাজন সৃষ্টি করে, কখনও একত্রিত করে না। এমন কোনো নজির নেই যেখানে ধর্মীয় উগ্রতা ও উগ্র জাতীয়তাবাদের কারণে দুটি সমাজ বা দেশ এক হয়েছে। সমাজের শান্তি ও সম্প্রীতি

বরিশালসহ গোটা দক্ষিণাঞ্চলে আত্মপ্রকাশ করে উগ্রপন্থি মৌলবাদী জঙ্গী সংগঠন হিজবুত তাওহীদ। প্রশাসনের কঠোর নজরদারী ও ধরপাকড়ের কারনে দীর্ঘদিন সংগঠনটির কার্যক্রম নিস্কিয় ছিলো

সরকার গঠন করার পর পরই কয়েকটি সংঘর্ষ ও হতাহতের ঘটনার মধ্য দিয়ে বরিশালসহ গোটা দক্ষিণাঞ্চলে আত্মপ্রকাশ করে উগ্রপন্থি মৌলবাদী জঙ্গী সংগঠন হিজবুত তাওহীদ। প্রশাসনের কঠোর নজরদারী ও ধরপাকড়ের কারনে দীর্ঘদিন

পৃথিবীব্যাপী ধর্মীয় উগ্রবাদের দুইটা ধরণ আছে। একটা ভূ-রাজনৈতিক অন্যটি আন্তর্জাতিক। এই দুটি রূপই বাংলাদেশে ক্রিয়াশীল।

মানুষ এখন ধর্মকে অনেকটা তার প্রয়োজনে ব্যবহার করছে। ধর্মের যে দিকটা পালন করা, ধারণ এবং নিজ স্বার্থে ব্যবহার করা সহজ সেই দিকটা আকড়ে ধরছে আর যে দিকটা নিজের প্রার্থিব স্বার্থ

যেভাবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে নির্বাচন: আওয়ামীলীগ কি চাই? বাস্তবতা কি?

  দেশে মহাসমারোহে আবারও একটি জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। অবশ্য ‘অনুষ্ঠিত’ না বলে ‘অভিনীত’ হতে যাচ্ছে বলাই সম্ভবত যথাযথ হবে। এর অভিনেতা-অভিনেত্রী থেকে শুরু করে মঞ্চের সামনের দর্শক এবং

কারা এই হিযবুত তাওহীদ..?

বাস, ট্রেন, লঞ্চসহ বিভিন্ন পাবলিক প্লেসে এবং সাম্প্রতিক সময়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্পন্সর বিজ্ঞাপনের দ্বারা ছড়ানো হেযবুত তাওহীদ নামক একটি সংগঠনের নানা প্রচারণা দৃষ্টি কেড়েছে সবার। বিগত কয়েক বছর ধরে

ধর্ম মানবতা শেখায় এবং জঙ্গিবাদ উগ্রতা শেখায়

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু এমপি বলেছেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা দেশের জন্য অকাতরে জীবন দিয়েছেন। দেবী দুর্গা হচ্ছে দুর্গতীনাসিনী, দেবী দুর্গা অসুর নিধনের মাধ্যমে সমাজে শান্তি

দুর্নীতির আখড়া সিলেট সিটি করপোরেশন

দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে সিলেট সিটি করপোরেশন। বিভিন্ন শাখার বেশকিছু কর্মকর্তার অনিয়ম, জালিয়াতি ও দুর্নীতির ফলে নষ্ট হচ্ছে নগর ভবনের সুনাম। তাদের বিরুদ্ধে সুস্পষ্ট অভিযোগ থাকলেও যথাযথ কোন ব্যবস্থা নেয়া

যেকোনো উগ্রবাদ বিভাজন সৃষ্টি করে, কখনও একত্রিত করে না

যেকোনো উগ্রবাদ বিভাজন সৃষ্টি করে, কখনও একত্রিত করে না। এমন কোনো নজির নেই যেখানে ধর্মীয় উগ্রতা ও উগ্র জাতীয়তাবাদের কারণে দুটি সমাজ বা দেশ এক হয়েছে। সমাজের শান্তি ও সম্প্রীতি

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে উগ্রবাদের প্রভাব প্রকট

একজন শিক্ষার্থী ১৩ ঘণ্টা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যুক্ত র‌য়ে‌ছেন। তাঁকে সে মাধ্যমে প্রভাবিত করা সহজ। নিউইয়র্কে হামলাকারী বাংলাদেশি তরুণ আকা‌য়েদ উল্লাহর উদাহরণ দি‌য়ে বলা হয়, এই তরুণ সামাজিক মাধ্যমে উগ্রবাদে যুক্ত

ধর্মান্ধতার কবলে নিমজ্জিত সমাজ: চিকিৎসার অভাবে জীবন গেলো মা ও নবজাতকের

হিযবুত তাওহীদ ও দেওয়াবাগীদের ধর্মান্ধতা আর রমরমা ধর্মব্যবসায় যেভাবে প্রাণ গেলো মা ও নবজাতকের: আমাদের এলাকার মেয়ে মরিয়ম আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা। কিন্তু হিযবুত তাওহীদ আর দেওয়ানবাগীদের ফতোয়ার ফলে মরিয়মের স্বামী

শান্তি-সম্প্রীতির পথে বাধা ধর্মীয় উগ্রবাদ ও উগ্র জাতীয়তাবাদ

যেকোনো উগ্রবাদ বিভাজন সৃষ্টি করে, কখনও একত্রিত করে না। এমন কোনো নজির নেই যেখানে ধর্মীয় উগ্রতা ও উগ্র জাতীয়তাবাদের কারণে দুটি সমাজ বা দেশ এক হয়েছে। সমাজের শান্তি ও সম্প্রীতি

বাংলাদেশের জন্য ধর্মীয় উগ্রবাদ এক বিরাট চ্যালেঞ্জ

বাংলাদেশের জন্য ধর্মীয় উগ্রবাদ এক বিরাট চ্যালেঞ্জের নাম বহুদিন ধরেই একথা দেশের প্রগতিশীল সকল পক্ষ থেকেই আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে যে, বাংলাদেশে উগ্রবাদ ভয়ংকর ভাবে মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে এবং এর

দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশের স্বপ্ন

সম্প্রতি জার্মানির বার্লিনভিত্তিক দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল (টিআই) বার্ষিক দুর্নীতির ধারণাসূচক–২০২০ প্রকাশ করেছে। টিআইর ওই প্রতিবেদনে দেখা যায়, বাংলাদেশ ১০০–এর মধ্যে ২৬ স্কোর পেয়েছে, যা ২০১৯–এর সমান। প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশের

ধর্ম, ধর্মান্ধতা ও জঙ্গিবাদ

সারা বিশে^ই আজ ধর্মীয় স্বাধীনতার আকাল চলছে। জঙ্গিবাদের উত্থান আতঙ্কজনক অবস্থায়। ধর্মের নামে তাদের তাÐব বিশ^কে অশান্ত করে রেখেছে। বিশে^ বর্তমানে ৭০০ কোটি মানুষের বাস। এই ৭০০ কোটি মানুষের সিংহভাগই

দুর্নীতি নির্মূলই হোক মূল লক্ষ্য

চাকরির প্রথম দিকের প্রশিক্ষণগুলোতে সততা, নৈতিকতা, দেশপ্রেমের ওপর প্রাধান্য দিয়ে সিলেবাস প্রণয়ন করা জরুরি। দেশের রাজনীতির ক্ষেত্রেও সন্ত্রাসী, লোভী ও অসৎ বাক্তিদের বয়কট করতে হবে। দেশে লাগামহীন দুর্নীতি যেমন হয়,

ফতোয়াবজির আড়ালে উস্কে দিচ্ছে জঙ্গীবাদ: কলকাঠি নাড়ছে ধর্মীয় উগ্রপন্থীদল হিজবুত তাওহীদ ও দেওয়ানবাগী

ফতোয়াবজির আড়ালে উস্কে দিচ্ছে জঙ্গীবাদ: কলকাঠি নাড়ছে ধর্মীয় উগ্রপন্থীদল হিজবুত তাওহীদ ও দেওয়ানবাগী এক কঠিন পরিস্থিতি বিরাজ করছে বানিয়াচং এলাকায়। সবকিছুতেই যেন যেন অস্থিরতা বিরাজমান। হিজবুত তাওহীদ ও দেওয়ানবাগীদের ফতোয়া

ফতোয়াবজির আড়ালে উস্কে দিচ্ছে জঙ্গীবাদ: কলকাঠি নাড়ছে ধর্মীয় উগ্রপন্থীদল হিজবুত তাওহীদ ও দেওয়ানবাগী

এক কঠিন পরিস্থিতি বিরাজ করছে…..এলাকায়। সবকিছুতেই যেন যেন অস্থিরতা বিরাজমান। হিজবুত তাওহীদ ও দেওয়ানবাগীদের ফতোয়া নিয়ে লোকজন মনেহচ্ছে মৃত্যুকুয়ায় নামছে।….. এলাকার লোকজন প্রতিটি কাজে তাদের ইশারা ছাড়া নড়েইনা। অথচ সচেতন

About Me

Md. Imdadul Mia, a prolific writer and blogger, challenges militancy, religious superstitions, and societal decay. His book “Dharmiya Goramir Ekal Sekal” exposes religious hypocrisy. Born in 2000 in Baniachong, he graduated in Physics in 2021. Alongside his father’s business, he advocates against intolerance through blogging and supports social initiatives like “Education for the Disabled” and “Bhatrapara Jubo Sangho.

Follow

Blog

এখনই সময় ধর্মীয় উগ্রবাদকে রুখে দেওয়ার।আমরা সহিংস উগ্রবাদমুক্ত শান্তিময় একটি আদর্শ সমাজ উপহার দিতে চাই।

সহিংস উগ্রবাদ বর্তমানে বিশ্বব্যাপী এক ভয়াবহ সামাজিক সমস্যার নাম। সারা বিশ্বের মানুষ আজ এটি নিয়ে উৎকণ্ঠিত এবং উদ্বিগ্ন। এর ভয়ংকর ছোবলে বিশ্ব আজ ক্ষতবিক্ষত। জাতি, ধর্ম, বর্ণ, গোত্র নির্বিশেষে আমাদের

আমাদের দেশে এই আতঙ্কজনক পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে জেএমবি, হরকাতুল জিহাদ, হিজবুল্লাহ, আনসারুল্লাহ বাংলা টিম, আল্লাহর দল, লস্করে তৈয়বা, তালেবান নামের বিভিন্ন জঙ্গিগোষ্ঠী

সারা বিশে^ই আজ ধর্মীয় স্বাধীনতার আকাল চলছে। জঙ্গিবাদের উত্থান আতঙ্কজনক অবস্থায়। ধর্মের নামে তাদের তাÐব বিশ^কে অশান্ত করে রেখেছে। বিশে^ বর্তমানে ৭০০ কোটি মানুষের বাস। এই ৭০০ কোটি মানুষের সিংহভাগই

বিশ্ব তথা সামাজিক শান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য ধর্মীয় সহনশীলতা জরুরি, উগ্রতা নয়।

যেকোনো উগ্রবাদ বিভাজন সৃষ্টি করে, কখনও একত্রিত করে না। এমন কোনো নজির নেই যেখানে ধর্মীয় উগ্রতা ও উগ্র জাতীয়তাবাদের কারণে দুটি সমাজ বা দেশ এক হয়েছে। সমাজের শান্তি ও সম্প্রীতি

সমাজের শান্তি ও সম্প্রীতি নির্ভর করে একটি অঞ্চলের মানুষের ইতিবাচক মানসিকতার উপর; ধর্ম বা জাতীয়তার উপর নয়।

যেকোনো উগ্রবাদ বিভাজন সৃষ্টি করে, কখনও একত্রিত করে না। এমন কোনো নজির নেই যেখানে ধর্মীয় উগ্রতা ও উগ্র জাতীয়তাবাদের কারণে দুটি সমাজ বা দেশ এক হয়েছে। সমাজের শান্তি ও সম্প্রীতি

বরিশালসহ গোটা দক্ষিণাঞ্চলে আত্মপ্রকাশ করে উগ্রপন্থি মৌলবাদী জঙ্গী সংগঠন হিজবুত তাওহীদ। প্রশাসনের কঠোর নজরদারী ও ধরপাকড়ের কারনে দীর্ঘদিন সংগঠনটির কার্যক্রম নিস্কিয় ছিলো

সরকার গঠন করার পর পরই কয়েকটি সংঘর্ষ ও হতাহতের ঘটনার মধ্য দিয়ে বরিশালসহ গোটা দক্ষিণাঞ্চলে আত্মপ্রকাশ করে উগ্রপন্থি মৌলবাদী জঙ্গী সংগঠন হিজবুত তাওহীদ। প্রশাসনের কঠোর নজরদারী ও ধরপাকড়ের কারনে দীর্ঘদিন

পৃথিবীব্যাপী ধর্মীয় উগ্রবাদের দুইটা ধরণ আছে। একটা ভূ-রাজনৈতিক অন্যটি আন্তর্জাতিক। এই দুটি রূপই বাংলাদেশে ক্রিয়াশীল।

মানুষ এখন ধর্মকে অনেকটা তার প্রয়োজনে ব্যবহার করছে। ধর্মের যে দিকটা পালন করা, ধারণ এবং নিজ স্বার্থে ব্যবহার করা সহজ সেই দিকটা আকড়ে ধরছে আর যে দিকটা নিজের প্রার্থিব স্বার্থ

যেভাবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে নির্বাচন: আওয়ামীলীগ কি চাই? বাস্তবতা কি?

  দেশে মহাসমারোহে আবারও একটি জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। অবশ্য ‘অনুষ্ঠিত’ না বলে ‘অভিনীত’ হতে যাচ্ছে বলাই সম্ভবত যথাযথ হবে। এর অভিনেতা-অভিনেত্রী থেকে শুরু করে মঞ্চের সামনের দর্শক এবং

কারা এই হিযবুত তাওহীদ..?

বাস, ট্রেন, লঞ্চসহ বিভিন্ন পাবলিক প্লেসে এবং সাম্প্রতিক সময়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্পন্সর বিজ্ঞাপনের দ্বারা ছড়ানো হেযবুত তাওহীদ নামক একটি সংগঠনের নানা প্রচারণা দৃষ্টি কেড়েছে সবার। বিগত কয়েক বছর ধরে

ধর্ম মানবতা শেখায় এবং জঙ্গিবাদ উগ্রতা শেখায়

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু এমপি বলেছেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা দেশের জন্য অকাতরে জীবন দিয়েছেন। দেবী দুর্গা হচ্ছে দুর্গতীনাসিনী, দেবী দুর্গা অসুর নিধনের মাধ্যমে সমাজে শান্তি

দুর্নীতির আখড়া সিলেট সিটি করপোরেশন

দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে সিলেট সিটি করপোরেশন। বিভিন্ন শাখার বেশকিছু কর্মকর্তার অনিয়ম, জালিয়াতি ও দুর্নীতির ফলে নষ্ট হচ্ছে নগর ভবনের সুনাম। তাদের বিরুদ্ধে সুস্পষ্ট অভিযোগ থাকলেও যথাযথ কোন ব্যবস্থা নেয়া

যেকোনো উগ্রবাদ বিভাজন সৃষ্টি করে, কখনও একত্রিত করে না

যেকোনো উগ্রবাদ বিভাজন সৃষ্টি করে, কখনও একত্রিত করে না। এমন কোনো নজির নেই যেখানে ধর্মীয় উগ্রতা ও উগ্র জাতীয়তাবাদের কারণে দুটি সমাজ বা দেশ এক হয়েছে। সমাজের শান্তি ও সম্প্রীতি

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে উগ্রবাদের প্রভাব প্রকট

একজন শিক্ষার্থী ১৩ ঘণ্টা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যুক্ত র‌য়ে‌ছেন। তাঁকে সে মাধ্যমে প্রভাবিত করা সহজ। নিউইয়র্কে হামলাকারী বাংলাদেশি তরুণ আকা‌য়েদ উল্লাহর উদাহরণ দি‌য়ে বলা হয়, এই তরুণ সামাজিক মাধ্যমে উগ্রবাদে যুক্ত

ধর্মান্ধতার কবলে নিমজ্জিত সমাজ: চিকিৎসার অভাবে জীবন গেলো মা ও নবজাতকের

হিযবুত তাওহীদ ও দেওয়াবাগীদের ধর্মান্ধতা আর রমরমা ধর্মব্যবসায় যেভাবে প্রাণ গেলো মা ও নবজাতকের: আমাদের এলাকার মেয়ে মরিয়ম আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা। কিন্তু হিযবুত তাওহীদ আর দেওয়ানবাগীদের ফতোয়ার ফলে মরিয়মের স্বামী

শান্তি-সম্প্রীতির পথে বাধা ধর্মীয় উগ্রবাদ ও উগ্র জাতীয়তাবাদ

যেকোনো উগ্রবাদ বিভাজন সৃষ্টি করে, কখনও একত্রিত করে না। এমন কোনো নজির নেই যেখানে ধর্মীয় উগ্রতা ও উগ্র জাতীয়তাবাদের কারণে দুটি সমাজ বা দেশ এক হয়েছে। সমাজের শান্তি ও সম্প্রীতি

বাংলাদেশের জন্য ধর্মীয় উগ্রবাদ এক বিরাট চ্যালেঞ্জ

বাংলাদেশের জন্য ধর্মীয় উগ্রবাদ এক বিরাট চ্যালেঞ্জের নাম বহুদিন ধরেই একথা দেশের প্রগতিশীল সকল পক্ষ থেকেই আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে যে, বাংলাদেশে উগ্রবাদ ভয়ংকর ভাবে মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে এবং এর

দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশের স্বপ্ন

সম্প্রতি জার্মানির বার্লিনভিত্তিক দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল (টিআই) বার্ষিক দুর্নীতির ধারণাসূচক–২০২০ প্রকাশ করেছে। টিআইর ওই প্রতিবেদনে দেখা যায়, বাংলাদেশ ১০০–এর মধ্যে ২৬ স্কোর পেয়েছে, যা ২০১৯–এর সমান। প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশের

ধর্ম, ধর্মান্ধতা ও জঙ্গিবাদ

সারা বিশে^ই আজ ধর্মীয় স্বাধীনতার আকাল চলছে। জঙ্গিবাদের উত্থান আতঙ্কজনক অবস্থায়। ধর্মের নামে তাদের তাÐব বিশ^কে অশান্ত করে রেখেছে। বিশে^ বর্তমানে ৭০০ কোটি মানুষের বাস। এই ৭০০ কোটি মানুষের সিংহভাগই

দুর্নীতি নির্মূলই হোক মূল লক্ষ্য

চাকরির প্রথম দিকের প্রশিক্ষণগুলোতে সততা, নৈতিকতা, দেশপ্রেমের ওপর প্রাধান্য দিয়ে সিলেবাস প্রণয়ন করা জরুরি। দেশের রাজনীতির ক্ষেত্রেও সন্ত্রাসী, লোভী ও অসৎ বাক্তিদের বয়কট করতে হবে। দেশে লাগামহীন দুর্নীতি যেমন হয়,

ফতোয়াবজির আড়ালে উস্কে দিচ্ছে জঙ্গীবাদ: কলকাঠি নাড়ছে ধর্মীয় উগ্রপন্থীদল হিজবুত তাওহীদ ও দেওয়ানবাগী

ফতোয়াবজির আড়ালে উস্কে দিচ্ছে জঙ্গীবাদ: কলকাঠি নাড়ছে ধর্মীয় উগ্রপন্থীদল হিজবুত তাওহীদ ও দেওয়ানবাগী এক কঠিন পরিস্থিতি বিরাজ করছে বানিয়াচং এলাকায়। সবকিছুতেই যেন যেন অস্থিরতা বিরাজমান। হিজবুত তাওহীদ ও দেওয়ানবাগীদের ফতোয়া

ফতোয়াবজির আড়ালে উস্কে দিচ্ছে জঙ্গীবাদ: কলকাঠি নাড়ছে ধর্মীয় উগ্রপন্থীদল হিজবুত তাওহীদ ও দেওয়ানবাগী

এক কঠিন পরিস্থিতি বিরাজ করছে…..এলাকায়। সবকিছুতেই যেন যেন অস্থিরতা বিরাজমান। হিজবুত তাওহীদ ও দেওয়ানবাগীদের ফতোয়া নিয়ে লোকজন মনেহচ্ছে মৃত্যুকুয়ায় নামছে।….. এলাকার লোকজন প্রতিটি কাজে তাদের ইশারা ছাড়া নড়েইনা। অথচ সচেতন

About Me

প্রফেশনাল ব্লগার ও সাংবাদিক। এখানে শর্ট বায়গ্রাফি লিখুন। এখানে শর্ট বায়গ্রাফি লিখুন। এখানে শর্ট বায়গ্রাফি লিখুন। এখানে শর্ট বায়গ্রাফি লিখুন। এখানে শর্ট বায়গ্রাফি লিখুন। এখানে শর্ট বায়গ্রাফি লিখুন। এখানে শর্ট বায়গ্রাফি লিখুন। এখানে শর্ট বায়গ্রাফি লিখুন। এখানে শর্ট বায়গ্রাফি লিখুন। এখানে শর্ট বায়গ্রাফি লিখুন। 

Follow